ডেস্ক রিপোর্ট : গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসাছাত্রী নুসরাতের জন্মদিন ছিল গতকাল ২০ নভেম্বর। ১৯৯৯ সালের এ দিনে নুসরাত সোনাগাজী পৌরসভার উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কিন্তু কিছু মানুষরূপী হিংস্র প্রাণীর হিংস্রতার শিকার হয়ে পরপারে পাড়ি জমায় নুসরাত। বোনের জন্মদিনে তার স্মৃতি মনে করে ছোট ভাই রাশেদুল হাসান রায়হান তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। রায়হানের এ স্ট্যাটাসটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়।

স্ট্যাটাসটি সুন্দরবন নিউজের পাঠকের জন্য হুববু তুলে ধরা হলো :

‘রায়হান তুই আপুরে কিয়া গিফট দিবি-গত বছরের এই দিনে, এই কথাটি বলে, আজ তুই চিরনিদ্রায় শায়িত। দু’চোখের অশ্রু ছাড়া দেয়ার মতো কিছুই নেই।
শুভ জন্মদিন আপুনি।’

রায়হানের স্ট্যাটাসটিতে অনেকে অনেক মন্তব্য করেছেন।

অনির্বান আরাফ নামের একজন লিখেছেন, ‘এই একটা মেয়ের যার কথা মনে পড়লে সারা শরীর আগুনে পুড়ে যাওয়ার অনুভূতি হয়। অনেক কষ্ট পাই।’

এমডি নয়ন নামের একজন লিখেন, ‘ভাই দোয়া করি বোনটিকে যেন আল্লাহ জান্নাত দান করুক।’

প্রায় সবাই নুসরাতের জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থণা করেন। আর এমন নির্মম ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত শাস্তি কার্যকরের কথা বলেন।

চলতি বছরের ২৭ মার্চ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার হাতে শ্লীলতাহানি শিকার হন নুসরাত। এর প্রতিবাদ করতে গিয়ে অধ্যক্ষের অনুগতদের হাতে আগুন সন্ত্রাসের শিকার হয়ে ১০ এপ্রিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুসরাত মৃত্যুবরণ করেন। নির্মম এ ঘটনায় হত্যা মামলা হয়।

গত ২৪ অক্টোবর আলোচিত এ মামলায় দোষী প্রমাণিত হওয়ায় ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের বিচারক মামুনুর রশীদ মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলাসহ ১৬ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন।